আমাদের সন্তান যেন থাকে দুধে ভাতে!

 

আমাদের সন্তান যেন থাকে দুধে ভাতে!

প্রতিদিন দুধ, কেক কলা ডিম বাকর খানি বা রুটি দেয়ার ফলে ধুপ করে উপস্থিতির বেড়ে গেছে এমন তথ্য দিতে পারলে ভাল লাগত। কিন্তু তা দিতে পারছি না কারন মজার ইশকুলের শিশুরা অথবা আমাদের টিচাররা পরস্পর এমন একটা মায়ার বাধন এবং পড়ার পরিবেশ তৈরি করতে পেরেছে অন্য কিছু সহায়ক হয় মূল উপাদান নয়।

তবে, বছরের শুরুতে পিটি করার সময় একাধিকবার এমন হয়েছে যে একাধিক শিশু অজ্ঞান হয়ে পরে গেছে মাঠেই। তথ্য সংগ্রহ করে আমরা পেয়েছিলাম সকাল বেলা বাসায় কিছুই না থাকা + না খেয়ে আসায় ১৫/২০ মিনিট দাঁড়িয়ে থাকা সম্ভব হয়ে উঠছিল না। ফলাফল ধপাস!

আমরা আপ্রাণ চেষ্টা করলাম, SEL দুই হাত প্রসারিত করলো বাচ্চারা এখন অজ্ঞান তো দূরের কথা মাত্র ৩ মাসেই শারীরিকভাবে বেশ ভাল।

গতকাল কথা বলছিলাম কেন প্রতিদিন ইশকুল এই দুধসহ অন্যান্য খাবার দেয়? অপ্রত্যাশিত উত্তর ছিল যা অন্তত আমি আশা করিনি ক্লাস থ্রি থেকে। “স্যার, আমরা যাতে সুস্থ্য থাহি আর ডেইলি ইশকুলে আহি । ”

শারিরীক অসুস্থ্যতা আর পেটে ক্ষুধা রেখে পড়াশোনায় মন দেয়া কঠিনই না শুধু, অসম্ভব। এটা আমরা শুরু থেকে সেই ২০১৩ সাল থেকে বিশ্বাস করি।

এই যে ৩ মাসে দুই হাজার ( ২,০০০) লিটারের বেশী দুধ বাচ্চারা খেলো এর ফলাফল তো ওরা দীর্ঘদিন পাবে। শিক্ষায়, খাদ্য সুস্বাস্থ্য নিশিচ করে এই ম্যাসেজটাকেও কিন্তু ছোট করে দেখার সুযোগ নেই।

মজার ইশকুল :: Mojar School